শনিবার ২৮ নভেম্বর, ২০২০

এমপি খোকার পক্ষে জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির বিবৃতি

শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০, ২১:১৩

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ জিআর ইনস্টিটিউশনের গেটে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভাঙার ঘটনার সাথে জাতীয় পার্টির সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার সম্পৃক্ততা নেই। শুক্রবার (২০ নভেম্বর) বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এমনটা দাবি করেছে জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টি।

উল্লেখ্য, লিয়াকত হোসেন খোকা নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের সাংসদ এবং জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য। গত ১৭ নভেম্বর সাংসদ খোকার নির্দেশে তার লোকজন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন নাম সম্বলিত ওই নামফলক ভেঙেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এ নিয়ে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। নারায়ণগঞ্জ শহর ও সোনারগাঁয়ে পৃথক দু’টি বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভাও অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্যসচিব আকরাম আলী শাহীন স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে জাতীয় পার্টির দাবি, এই ঘটনার সাথে এমপি খোকার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এ ঘটনা নিয়ে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে বক্তব্য প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে তা ‘সম্পূর্ণ বানোয়াট ও কল্পনাপ্রসূত’ দাবি জাতীয় পার্টির।

মহানগর জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক সানাউল্লাহ্ সানু, সদস্য সচিব আকরাম আলী শাহীন ও জেলা জাতীয় পার্টির নেতা শাহ্ মো. হানিফের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সোনারগাঁ জিআর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের অভিভাবকদের মাঝে করোনাকালে শিক্ষার্থীদের বেতন নিয়ে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়। ওই বিষয়ে অভিভাবকদের সঙ্গে বৈঠক করতে ১৭ নভেম্বর দুপুরে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন লিয়াকত হোসেন খোকা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম, বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ সুলতান মিয়া, কাউন্সিলর জাহেদা আক্তার মনি, কাউন্সিলর দুলাল মিয়া, বিদ্যালয় গভর্নিং বডির সদস্য মোহাম্মদ আলী, সোনারগাঁ পৌর জাতীয় পার্টির সভাপতি এমএ জামান, শিক্ষানুরাগী আলেয়া আক্তারসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা শিক্ষার্থীদের বেতন নিয়ে অসন্তোষ সৃষ্টির বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে এমপি খোকা নেতৃবৃন্দেরকে নিয়ে বিদ্যালয় ত্যাগ করেন। পরে অজ্ঞাত দুষ্কৃতকারী বিদ্যালয়ের গেটে লাগানো নামফলকটি ভেঙে ফেলে। এর সঙ্গে সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টি।

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ