বৃহস্পতিবার ২২ অক্টোবর, ২০২০

ঝাল না থাকলেও কাঁচা মরিচের বাজারে আগুন

রবিবার, ১৯ জুলাই ২০২০, ১৬:২২

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। ১৫ দিনের ব্যবধানে প্রতি কেজি মরিচের দাম বেড়েছে ১০০ টাকা। ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি কাঁচা মরিচ এখন ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, টানা বর্ষণের কারণে মরিচ খেত নষ্ট হয়ে গেছে। উৎপাদন না হওয়ায় বাজারে মরিচ নেই এবং দামও চড়া।

রোববার (১৯ জুলাই) সকালে শহরের প্রধান কাঁচাবাজার দিগুবাবুর বাজারে দেখা যায়, বাজারে ইন্ডিয়ান মরিচের ছড়াছড়ি, দেশি মরিচ নেই বললেই চলে। যা আছে তাও হাতের নাগালের বাইরে। শতাধিক সবজি বিক্রেতার মধ্যে মাত্র ১৭ জন বিক্রেতাকে মরিচ বিক্রি করতে দেখা যায়। তবে সেগুলোর সবই ইন্ডিয়ান লম্বা ও সাদা কাচা মরিচ। সারা বাজারে একজন বিক্রেতার কাছে শুধু মুন্সিগঞ্জের কালো বারি মরিচ দেখা যায়। যার মূল্য ২৪০ টাকা কেজি।

আরেক বিক্রতা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘কৃষকের খেত পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। কোথাও দেশি মরিচ নাই। সবার কাছেই ইন্ডিয়ান মরিচ। আমার কাছেও ইন্ডিয়ান। লম্বাটা ১৫০ টাকা কেজি আর সাদা মরিচ ১৪০ টাকা। উচু অঞ্চলের কিছু মরিচ আছে কিন্তু সেগুলান দাম অনেক বেশি। বেইচা কুলাইতে পারমু না। তাই কিনি নাই।’

বাজারে অনেক বিক্রেতাকে ইন্ডিয়ান মরিচকে দেশি বলেই বিক্রি করতে দেখা যায়। এর কারণে জানতে চাইলে বিক্রেতা হাসেম আলী বলেন, ‘ইন্ডিয়ান মরিচ অনেকে নিতে চায় না। আর দেশি মরিচ বাজারে নাই। কি করমু, বেচতে তো হইবো তাই দেশি কইয়া বেচতাছি।’

ইন্ডিয়ান মরিচ না হাইব্রিড ক্রেতার এমন প্রশ্নে চেচিয়ে উঠেন বিক্রতা আলম। বলেন, ‘ইন্ডিয়ার মরিচ। ইন্ডিয়ান মরিচ না থাকলে বাজারে মরিচই থাকতো না। আর তরকারিও খাওয়া লাগতো না। যা আসে নিয়া যান।’

ক্রেতা মো. আব্দুল কাদির ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘খেত নষ্ট হইসে আমরা জানি। কিন্তু ইন্ডিয়ান মরিচ তো বাজারে অনেক আসছে। তাহলে এত দাম রাখবে কেন? এই মরিচ আবার দেশি মরিচের তুলনায় ঝাল কম। যার কারণে দেশী মরিচের তুলনায় খাবারে ব্যবহার করতে হয় বেশি। না কিনেও পারি না। খেতে তো হবে।’

আরেকজন ক্রেতা মাহমুদা বলেন, ‘অনেকদিন ধরেই এত দামে মরিচ কিনছি। কি করবো, খেতে তো হবে। মরিচ ছাড়া তো বাঙ্গালির খাওয়া হয় না। সব খাবারেই লাগে। তাই বাধ্য হয়ে কিনতেই হচ্ছে। তবে দাম বেশি তাই খাওয়া কিছুটা কমিয়ে দিতে হয়েছে। এখন তুলনামূলক কম খাওয়া হয় এই আরকি।’

সব খবর
অর্থনীতি বিভাগের সর্বশেষ