সোমবার ২১ জুন, ২০২১

শিশুবান্ধব নগরী গড়তে মাঠ ও পার্কের ব্যবস্থা করতে হবে

বুধবার, ৫ মে ২০২১, ২১:২৭

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, “শিশুবান্ধব নগরী গড়তে মাঠ ও পার্কের ব্যবস্থা করতে হবে৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এতে জোর দিয়েছেন৷” বুধবার (৫ মে) সেভ দ্য চিলড্রেন ও বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স আয়োজিত ‘মেয়র সংলাপ: নিরাপদ, টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক নগর’ বিষয়ক ভার্চুয়াল সভায় এ কথা বলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, “নগর যেভাবে দ্রুত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে সেভাবে আমাদের পরিকল্পনা হচ্ছে না। আমরা অপরিকল্পিত নগরায়নের দিকে বেশি ছুটছি।”

নাসিক মেয়র বলেন, “টেকসইয়ের দিকের কথা বললে আমরা সিটি করপোরেশন এবং পৌরসভাগুলোতে অবকাঠামোগত কাজগুলো মোটামুটি ঠিকই করে যাচ্ছি। কিন্তু একটি পরিকল্পিত নগরায়নের জন্য যে জিনিসগুলো প্রয়োজন সেগুলো কি আমাদের কাছে আছে? ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও সাভারের পুরো দায়-দায়িত্ব নিয়ে রেখেছে রাজউক। চট্টগ্রাম, খুলনা ও অন্যান্য স্থানের একই অবস্থা। তাহলে এই অপরিকল্পিত নগরায়নের পেছনে আমাদের কোনো দায়-দায়িত্ব থাকছে না। অথচ নগরের সমস্ত সেবা আমাদের দিতে হচ্ছে। এই যে ভবন করা হলে তার রাস্তা আছে কি নাই সেদিকে আমাদের কোনো হাত নাই৷ এবং এটি একটি বড় বিপর্যয় বলে আমি মনে করছি।”

মেয়র আইভী আরও বলেন, “স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে হবে। কয়েকটি বাতি লাগিয়ে শহরকে আলোকিত করে নিরাপদ শহর করা সম্ভব হয় না। আমাদের অন্যান্য সংস্থাগুলোর সাথে মিলিত হয়ে কাজগুলো করতে হবে। একটি খেলার মাঠ দখল উচ্ছেদ করতে হলেও ডিসি সাহেব থেকে ম্যাজিস্ট্রেট চাইতে হয়, পুলিশ চাইতে হয়, বিভিন্ন সংস্থার দ্বারস্থ হতে হয়।”

প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও পুরোদমে কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানান নাসিক মেয়র৷ তিনি বলেন, “এর মধ্যে আমরা অনেক কাজ করছি, আমরা জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য বড় বড় ড্রেনগুলো করছি আবার সেই ড্র্রেনগুলো নাগরিকের সচেতনতার অভাবে বন্ধ হয়ে থাকছে। যানজটের জন্য গণপরিবহনের দরকার। আমাদের মাস্টারপ্ল্যান হচ্ছে কিন্তু আমরা যেভাবে সহযোগিতা পাওয়ার কথা বা যে ধরণের অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা থাকার কথা সেভাবে পাচ্ছি না বলে আমরা তা করতে পারছি না।”

নগরীতে খোলা জায়গা নিয়ে মেয়র বলেন, “একটি শহরে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ খোলা জায়গার প্রয়োজন। মাঠ, পার্ক, খাল, নদী, পুকুর ইত্যাদি জায়গাগুলো খোলা জায়গার মধ্যে পড়ে। আমাদের নারায়ণগঞ্জ শহরে প্রচুর খাল রয়েছে যার মধ্যে আমি ১০-১২টি নিয়ে কাজ করছি এবং আরও অনেকগুলো রয়ে গেছে। অর্থনৈতিক অবস্থার কারণে আমরা সব কাজ একসাথে করতে পারছি না। আবার শহরের মধ্যে অনেক জায়গা রয়েছে কিন্তু আমাদের নিজেদের জায়গা নাই। রেলওয়ে ও অন্যান্য সংস্থার অনেক জায়গা খালি পড়ে আছে কিন্তু আমরা মাঠের জন্য বা পার্কের জন্য চাইলে সেগুলো দেওয়া হয় না। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিশুবান্ধব নগরী গড়ার জন্য জোর দিয়েছেন। শিশুবান্ধব নগরী গড়তে পর্যাপ্ত পরিমাণ মাঠ, পার্ক ও শিশুদের যাতায়াতের ব্যবস্থা করে দিতে হবে। কিন্তু আমরা সেটি করতে পারছি না এবং বলেও এর সমাধান পাচ্ছি না। এখানে আমাদের অন্য মন্ত্রণালয়ের জায়গা রযেছে যা আলোচনার মাধ্যমে দেওয়া যায় কিনা সেটি আমাদের চিন্তা করা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।”

সব খবর
নগর বিভাগের সর্বশেষ