সোমবার ২১ জুন, ২০২১

সোনারগাঁয়ে মামুনুল ইস্যুতে প্রশাসন ব্যর্থ, মন্তব্য শামীম ওসমানের

রবিবার, ৪ এপ্রিল ২০২১, ১৮:০৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ.কম

প্রেস নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের রিসোর্টে হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হকের অবরুদ্ধ হওয়া, প্রশাসনিক পদক্ষেপ ও পরবর্তী ঘটনা নিয়ে বেসরকারি একটি টেলিভিশনের টকশোতে কথা বলেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের আওয়ামী লীগের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান। পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রশাসন ব্যর্থ হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন এই সংসদ সদস্য। শনিবার (৩ এপ্রিল) রাতে বেসরকারি টেলিভিশনের টকশোতে কথা বলতে গিয়ে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

শামীম ওসমান বলেন, ‘আমার কোনো ফেসবুক নাই, সুতরাং ফেসবুক দেখতে পারি না। তাই আমাকে ওইখানকার নেতা-কর্মীরা ভিডিও করে পাঠাচ্ছিলেন। এই ২-৩ ঘন্টার মধ্যে প্রশাসনের উচিত ছিল সেখান থেকে তাদের নিয়ে যাওয়া এবং জিজ্ঞাসাবাদ করে মূল বিষয়টাকে জানা। সেটা করতে তারা ব্যর্থ হয়েছেন কিংবা করেন নাই। সেটার কৈফিয়ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দিবেন। সেখানে ধস্তাধস্তি, হৈ-চৈ খানিকক্ষন হয়েছিল। এবং সেখানে আওয়ামী লীগের নেতারা ও যুবলীগের নেতারা ছিলেন। আমি সেখানকার টোটাল ভিডিও ফুটেজে দেখেছি কারা কারা হামলা করেছে। সেখানে হেফাজতের কর্মী কত পার্সেন্ট ছিল এবং বিএনপি-শিবিরের কর্মী কত পার্সেন্ট ছিল সেটাও আমি দেখেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিষয়টা হচ্ছে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি কোন জায়গায় গিয়ে ঠেকেছে! নিজের কাছে আজ লজ্জা লাগে। ফোনালাপ ফাঁস করায় আমি একাত্তর টিভিকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। এ ঘটনা ৪টা থেকে শুরু হয়েছে। ৪টার দিকেই আমি ইনফর্ম হয়েছি। ঢাকা ক্লাবের একটা ইলেকশন ছিল সেখানে আমি ছিলাম। একাত্তর টিভির কর্ণধারও সেখানে ছিলেন। আমি ইনফর্ম হওয়ার পরে যেখানে যেখানে প্রয়োজন জানিয়েছি। তবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল যে এটা মামুনুল হকের স্ত্রী হবেন। এবং অন্য কেউ এটা হতে পারেন এটা আমার বিশ্বাস ছিল না। নারী সংগঠিত ব্যাপার, এটা যদি তার স্ত্রী হয় এবং সেখানে অপ্রীতিকর কিছু ঘটা মানে অসম্মানজনক ঘটনা।

তারাই তো বিভিন্ন জায়গায় ওয়াজ-মাহফিল করছেন, তারা ইসলামের, বেহেশতের ও দোজখের লাইসেন্স দিচ্ছেন। এ লাইসেন্স যারা দিচ্ছেন তারা আল্লাহর নামে কসম খেয়ে বলছেন উনি আমার স্ত্রী। যখন আল্লাহর নামে কসম খেয়ে বলবেন উনি আমার স্ত্রী, তাহলে তা মানতেই হবে যে তিনি তার স্ত্রী। এ ঘটনাটি যখন ঘটছে আমি বুঝতে পেরেছি এখানে কিছু একটা ঘটবে। সরকারের যেসব উর্ধ্বতন মহলে জানানোর দরকার আমরা তড়িৎ গতিতে সেখানে জানিয়েছি। যেন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে। আপনার টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকেও প্রথম আমি জানিয়েছি যে কিছু একটা হতে যাচ্ছে। ওই নারী আসলেই তার স্ত্রী নাকি অন্য কেউ সেটা নিয়ে বিভ্রান্ত ছিলাম।

সোনারগাঁয়ে মামুনুল হক ইস্যুতে শামীম ওসমান সাহেব পরাজিত, টকশোতে এমন মন্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা তো পরাজিতই। কারণ আমরা গোলাম আজমকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করার পর ২০০১ এ বোম ব্লাস্ট এ শিকার হয়েছি। সে ঘটনায় বিচার পায়নি এবং আমার সাক্ষীসহ বদলে দেওয়া হয়েছে। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে সমস্ত পরাজিতের দায়-দায়িত্ব আমাদের।’

আওয়ামী লীগের এই সাংসদ বলেন, ‘যারা মামুনুলকে আটকিয়েছিল তারা অবশ্যই আওয়ামী লীগের কর্মী। তার প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের নেতা ও যুবলীগের সভাপতি নান্নুর বাড়িতে, তার মার্কেটে, তার চায়নিজ রেস্টুরেন্ট ও তার সমস্ত কিছুতে শুধু ভাঙচুর করা হয়নি বরং তছনছ করে দেওয়া হয়েছে। সেই সাথে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক নেতা সোহাগের ঘরে ঢুকে তার বৌ-বাচ্চাকে আহত করা হয়েছে এবং বাড়ি-ঘর তছনছ করে দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ অফিসেও হামলা করা হয়েছে। এখন আপনি বলতে পারেন প্রতিরোধ করলেন না কেন? এখানে অনেক ধরনের খেলা চলছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যে হামলাগুলো হয়েছে তা দেখে আমার মনে হয়েছে, আজকে থেকে ৫০ বছর আগে পাক বাহিনীরা যদি হামলা করতো তাহলে যে যে প্রতিষ্ঠানে হামলা করতো ঠিক সেই সেই প্রতিষ্ঠানের চেয়েও দু’চারটা বেশি হামলা হয়েছে সেখানে।’

সব খবর
রাজনীতি বিভাগের সর্বশেষ