১৬ জুন ২০২৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত: ২০:৪৭, ৯ জুন ২০২৪

বন্দরে প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা 

বন্দরে প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা 

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে পুরোনো দ্বন্দ্বের জেরে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলায় মো. মনিরুজ্জামান ওরফে মনুকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। শনিবার (৮ জুন) নিহতের স্ত্রী সাবিনা বেগম বাদী হয়ে এই মামলা করেন। মামলায় ১৫ জনের নাম উল্লেখের পাশাপাশি কয়েকজন অজ্ঞাতনামাকে আসামি রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মামলার আসামিরা হলেন, মুরাদপুর এলাকার মনির, মিঠু, টিটু, ফারুক, মোজাম্মেল, নুরু হাজী, কাউসার, নাঈম, ফরহাদ, ফয়সাল, রায়হান, নুরুল, মোজাম্মেল, ইউনুস ও জনি। 

গত ৭ জুন বেলা ১১টার দিকে মদনপুর ইউনিয়নের মুরাদপুরে নিজ বাড়ির সামনে তাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করা হয়৷ পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুর দুইটার দিকে তিনি মারা যান তিনি। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পরিবহন খাতে চাঁদাবাজি ও স্থানীয়ভাবে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মনিরুজ্জামান ও তার পরিবারের সাথে স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী বাহিনীর পুরোনো দ্বন্দ্ব রয়েছে৷ মনিরের ভাই কামরুজ্জামান ওরফে কামু (মৃত) এক সময় একটি সন্ত্রাসী বাহিনীর নেতৃত্ব দিতেন৷ কামুর স্বাভাবিক মৃত্যু হলেও এ দ্বন্দ্বের জেরে মনু ছাড়াও তার মা ও অপর দুই ভাই বিভিন্ন সময় প্রতিপক্ষের হামলায় খুন হন৷

নিহত মনিরুজ্জামানের স্ত্রী সাবিনা আক্তার বলেন, ‘বিয়ের পর থেকে কাপাসিয়ায় শ্বশুরবাড়িতেই বেশি সময় থাকতেন মনির৷ কাঁচপুরে এক আত্মীয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে এসেছিল৷ এই খবর পেয়ে সন্ত্রাসী বাহিনীর প্রধান নুরা মিয়া ও তার ছেলেরা মিলে আমার স্বামীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে৷ আমি এর বিচার চাই৷’

বন্দর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) গোলাম মোস্তফা বলেন, হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। এতে ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে ও কয়েকজন অজ্ঞাতনামা করে আসামি করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়