১৬ জুলাই ২০২৪

প্রেস নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত: ২০:৩৫, ২০ নভেম্বর ২০২৩

রূপগঞ্জে যুবদল নেতার বাড়িতে হামলা, মা-বাবা-বোন আহত

রূপগঞ্জে যুবদল নেতার বাড়িতে হামলা, মা-বাবা-বোন আহত

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায় যুবদলের এক নেতার বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে স্থানীয় যুবলীগ নেতাকর্মীরা। হামলায় দুই নারীসহ পরিবারের তিন সদস্য আহত হয়েছেন।

সোমবার (২০ নভেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে রূপগঞ্জ উপজেলার গোলাকান্দাইল উত্তরপাড়া এলাকায় যুবদল নেতা ওমর হোসেনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ওমর হোসেন উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক।

ওমর হোসেনের বাবা সেলিম ভূঁইয়া বলেন, দুপুরের খাবার শেষে তিনি, তার স্ত্রী ও মেয়ে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন এমন সময় ১৫-২০ জন লোক কাপড়ে মুখ ঢেকে ঘরে প্রবেশ করে। তাদের হাতে হকি ব্যাট, লাঠি ও লোহার পাইপ ছিল।

“তারা অকথ্য ভাষায় আমার ছেলের নাম ধরে ডাকে, আমার ছেলেকে বাড়িতে না পেয়ে আসবাবপত্র ভাংচুর করে এবং ঘরের আলমারির তালা ভেঙে টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার লুট করে। আমরা বাধা দিতে গেলে তারা আমার স্ত্রী, মেয়ে ও আমাকে মারধর করে। অন্তত ১৫ মিনিট বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাটের পর তারা ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দিয়ে মোটরসাইকেলে করে চলে যায়।

স্থানীয় কারো সঙ্গে তার পরিবারের কোনো বিরোধ ছিল না, শুধু তার ছেলে ওমর হোসেন বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে এ হামলা হয়েছে বলে জানান ৬৫ বছর বয়সী সেলিম।

যুবদল নেতা ওমর হোসেন অভিযোগ করেন, গোলাকান্দাইল শাখা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কুরবান আলী ও যুগ্ম সম্পাদক হামলাকারীদের নেতৃত্ব দেন। একই হামলাকারীরা রোববার সকালে উপজেলার গোলাকান্দাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তার বরফ তৈরির কারখানায় গিয়ে কারখানার দুই শ্রমিককে তুলে নিয়ে মারধর করে। এরপর তারা কারখানা বন্ধ করে দেয়। কারখানা এখনও বন্ধ।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে যুবলীগ নেতা কুরবান আলী বলেন, হামলার বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না।

তিনি আরও বলেন, রবিবার তিনি ওমরের কারখানায় তার ভাতিজির বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য বরফ কিনতে যান।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ-সার্কেল) আবির হোসেন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ভুক্তভোগী পরিবার অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ওমর বলেন, “আমি যুবদলের নেতা বলে আমার বাড়ি ও ব্যবসায় বারবার হামলা হচ্ছে। এর আগেও গত বছরের ডিসেম্বরে এই হামলাকারীরা দুইবার আমার ব্যবসায়িক সম্পত্তি ভাংচুর ও লুট করে। ওই সময় রূপগঞ্জ থানায় অভিযোগ করেও কোনো লাভ হয়নি। সেই অভিযোগে উল্টো আমার বাড়িতে হামলা চালায়। সে কারণেই, আমি পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি”,।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়